মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:২৯ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
চৌহালীর আ’লীগ নেত্রীর দিন কাটে না খেয়ে খোলা ছাপড়ায় বর্ধিত যুব সমাজের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে আউটসোসিংয়ের বিকল্প নেই-কবির বিন আনোয়ার বিশ্বনাথে প্রয়াত হাজী তেরা মিয়া স্মরণে ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত নির্বাচিত হলে সম্মানী ভাতা এতিমদের মাঝে বন্ঠনের ঘোষণা দিলেন আরশ আলী গণি আমার ‘স্বামী কোথায় আছে, জানার অধিকারও কি নেই’ বিশ্বনাথে উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন বিশ্বনাথে দলিল জালিয়াতি মামলায় প্রবাসী ছইল মিয়া কারাগারে বিশ্বনাথে দরিদ্র মানুষের মধ্যে প্রবাসী পরিবারের শীত বস্ত্র ও খাদ্য বিতরণ বিশ্বনাথে আতাপুর সমবায় সমিতির আত্মপ্রকাশ সচেতন ছাত্র সমাজ CSS এর কমিটি গঠন

বিশ্বনাথে আ’লীগের পৌর ইউনিয়ন কমিটিতে স্থান পাননি সদ্য বিলুপ্ত কমিটির ৩৯ নেতা স্থান হয়েছে বিএনপি নেতা 

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : সিলেটের বিশ্বনাথে সদ্য ঘোষিত আওয়ামী লীগের পৌর ও বিশ্বনাথ ইউনিয়ন কমিটিতে স্থান হয়নি সদ্য বিলুপ্তকৃত ৬৫ সদস্যের বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন কমিটিতে থাকা ৩৯ নেতার।
একটি কমিটি ভেঙ্গে দুটি কমিটি গঠন করার পরও ওই কমিটিগুলোতে দলের অনেক ত্যাগী নেতাকর্মী স্থান না পেলেও পৌর আওয়ামী লীগের কমিটিতে স্থান পেয়েছেন বিএনপি নেতা আব্দুল ওদুদ মেম্বার ও পৌর এলাকার বাইরের বাসিন্দা সাইদুর রহমান।
বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নের প্রায় ৭০% এলাকা পৌরসভায় অন্তভর্‚ক্ত হওয়ার ফলে বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়।
আর গত ২৬ নভেম্বর পৌর এলাকার বাইরে থাকা অংশ নিয়ে বিশ্বনাথ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নতুন আহবায়ক কমিটি ও উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত পৌরসভার প্রথম আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করে উপজেলা আওয়ামী লীগ।
পৌর কমিটিতে অনেক ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালনকারী দুজনের একজনও যেমন কেউ স্থান পাননি তেমনি উপেক্ষিত হয়েছেন বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দুই বারের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মহব্বত আলী।
তিনি হয়েছেন, পৌর কমিটির দ্বিতীয় যুগ্ম আহবায়ক। আর প্রথম যুগ্ম আহবায়ক করা হয়েছে উপজেলা যুবলীগের দ্বিতীয় যুগ্ম আহবায়ককে।
সদ্য ঘোষিত বিশ্বনাথ পৌর ও ইউনিয়ন কমিটিতে স্থান পাননি সদ্য বিলুপ্তকৃত বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটির ৪ জন সহ সভাপতি, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক, দপ্তর সম্পাদক, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক, ১ জন সাংগঠনিক সম্পাদক, সহ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং ১৭ জন কার্যনির্বাহী সদস্য।
এছাড়া কমিটিতে থাকা আরোও ৭ জন কার্যনির্বাহী সদস্য ইতিমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন।
কমিটি দুটিতে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মী স্থান পেলেও বিগত সময়ে কমিটিতে থাকা দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের কমিটিতে অন্তভর্‚ক্ত না করার ফলে আবারও তারা দলের পদ-পদবীর বাইরেই থেকে গেলেন।
বিভিন্ন নির্বাচনে ছাড়া নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে পরিশ্রম করেন তাদের বেশি ভাগকে বাদ দিয়ে কমিটি দুটি ঘোষণা করা নিয়ে নানান জল্পনা-কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে।
সদ্য বিলুপ্তকৃত বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আপ্তাব আলী বলেন, মাঠ পর্যায় থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে আসার পরও আজ কমিটিতে সদস্য হওয়ার যোগ্যতা হারিয়েছি।
আর আওয়ামী লীগের কমিটিতে নিজেদের নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে এখন সদস্য হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা।
তবে আমার কাছ থেকে তো আর কেউ বঙ্গবন্ধুর কর্মী থাকার যোগ্যতা কেউ কেড়ে নিতে পারবে না। তাই পদ-পদবী বড় কথা নয়, আমি নৌকার কর্মী হিসেবেই নিজের কাজ করে যাব।
সদ্য বিলুপ্তকৃত বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক সেবুল মিয়া বলেন, ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে শুরু করে আজ এবস্থানে আসার পরও এখন কমিটিতে সদস্য থাকার যোগ্যতা আমাদের নেই। তাতে কিছু করার নেই। আমিতো নৌকার কর্মী, বঙ্গবন্ধুর কর্মী, শেখ হাসিনার কর্মী। এতেই চলবে আমার।
এব্যাপারে পৌর আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় যুগ্ম আহবায়ক ও সদ্য বিলুপ্তকৃত বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহব্বত আলী বলেন, আমি নৌকার কর্মী, বঙ্গবন্ধুর কর্মী, শেখ হাসিনার কর্মী। আমি ব্যক্তি তোয়াজের রাজনীতি করি না, তাই কেউ আমার পরিশ্রমকে দেখেও না দেখার ভান করতে পারে কিংবা আমার কর্মকান্ডের মূল্যায়ন না করতে পারে সেটা তার ব্যাপার।
আর কমিটিতে আমার স্থান কোথায় তা দেখে আমি রাজনীতি করিনা। আল্লাহ সহায় থাকলে আমাকে কেউ ছোট করতে পারবে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

© All rights reserved