মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:৪৩ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
চৌহালীর আ’লীগ নেত্রীর দিন কাটে না খেয়ে খোলা ছাপড়ায় বর্ধিত যুব সমাজের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে আউটসোসিংয়ের বিকল্প নেই-কবির বিন আনোয়ার বিশ্বনাথে প্রয়াত হাজী তেরা মিয়া স্মরণে ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত নির্বাচিত হলে সম্মানী ভাতা এতিমদের মাঝে বন্ঠনের ঘোষণা দিলেন আরশ আলী গণি আমার ‘স্বামী কোথায় আছে, জানার অধিকারও কি নেই’ বিশ্বনাথে উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন বিশ্বনাথে দলিল জালিয়াতি মামলায় প্রবাসী ছইল মিয়া কারাগারে বিশ্বনাথে দরিদ্র মানুষের মধ্যে প্রবাসী পরিবারের শীত বস্ত্র ও খাদ্য বিতরণ বিশ্বনাথে আতাপুর সমবায় সমিতির আত্মপ্রকাশ সচেতন ছাত্র সমাজ CSS এর কমিটি গঠন

বিশ্বনাথে দলিল জালিয়াতি মামলায় প্রবাসী ছইল মিয়া কারাগারে

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : সিলেটের বিশ্বনাথে দলিল জালিয়াতি মামলার প্রধান আসামি প্রবাসী ছইল মিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।
ছইল মিয়া সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের পালের চক গ্রামের মৃত ইছাক আলীর ছেলে।
দলিল জালিয়াতি হয়েছে মর্মে এমন অভিযোগ এনে ২০১৯ সালের ১৩ জুলাই সিলেটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৩নং আমলী আদালতে ছইল মিয়া ও তার ভাই মুনছুর মিয়াকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন তারই চাচাত ভাই তফুর আলী উরফে নেফুর আলী। (বিশ্বনাথ জিআর মামলা নং-১৪৪)।
এই মামলায় প্রবাসী ছইল মিয়া দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন। গত সোমবার (১০ জানুয়ারি) সিলেট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৩নং আমলী আদালতে হাজিরা দিতে গেলে আদালত জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেয়।
বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন বাদি পক্ষের আইনজীবি সৈয়দ গোলাম রশিদ।
মামলার এজাহার সূত্র জানা গেছে, বিশ্বনাথ উপজেলার বুবরাজান মৌজার জেএল নং-৬৩, খতিয়ান নং-১৯৭, দাগ নং-৯৯৭ দাগে .৩৩ একর ভুমির ২০৩ নং খতিয়ানে বিএস-১০০০ নং দাগে বাদির পিতা ইলিয়াস আলীর নামে রেকর্ড প্রকাশিত ও ভোগ দখলে আছেন।
কিন্তু বিবাদী ছইল মিয়া ও মনসুর আলী বিশ্বনাথ সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের ২৫১০/৯৫ইং কাবালাটি সহকারি কমিশনার ভূমির নিকট দাখিল করে বাদী ও তার চাচার সমুদয় ভুমি বিবাদিগণের নামে নামজারি করে নেন।
বাদী দলিলের নকল তুলে দেখেন ২৫১০/৯৫ নং দলিলটি টেংরা প্রকাশিত চাঁনপুর গ্রামের মৃত হামিদুল্লাহর ছেলে মনতাজ আলী ও সুনাফর আলীর নামে রয়েছে।
ভূমির মালিক বাদীর পিতা বা চাচা বিবাদীগণের নিকট কোন দলিল সম্পাদক করে ভূমি বিক্রয় করেননি। চালাক চতুর আসামিগণ জাল দলিল সৃষ্টির মাধ্যমে প্রতারণা করে ভূমি আত্মসাৎ করেছেন।
এই মামলার হাজিরা দিতে গিয়ে ছইল মিয়াকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। এ সংক্রান্ত বিষয়ে উভয়ের মধ্যে একাধিক পাল্টাপাল্টি মামলা চলমান রয়েছে বলে জানা গেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

© All rights reserved