মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
বিশ্বনাথে আ’লীগের পৌর ইউনিয়ন কমিটিতে স্থান পাননি সদ্য বিলুপ্ত কমিটির ৩৯ নেতা স্থান হয়েছে বিএনপি নেতা  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন হলেন বিশ্বনাথের ড. রইছ উদ্দিন  বিশ্বনাথে খাজাঞ্চী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রীতিগঞ্জ বাজারে নির্মাণের দাবি বিশ্বনাথে আমন ধানের বাম্পার ফলন বিশ্বনাথে অসুস্থ আল- ইসলাহ’র মহাসচিবের পাশে আর-রাহমান ট্রাস্টের সভাপতি উৎসব মূখর পরিবেশে চৌহালীতে ৩৫৫ জনের মনোনয়ন পত্র দাখিল বিশ্বনাথে মাঠে মাঠে শীতকালীন সবজি বিশ্বনাথে পুত্রবধূর নির্যাতনে প্রতিবন্ধী ননদ শাশুড়ীসহ আহত- ২ বিশ্বনাথে সম্পত্তি দখলে প্রবাসীকে হত্যার চেষ্টা অবশেষে সিলেটে পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত

বিশ্বনাথে পুত্রবধূর নির্যাতনে প্রতিবন্ধী ননদ শাশুড়ীসহ আহত- ২

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি : সিলেটের বিশ্বনাথে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পুত্রবধূর নির্যাতনে প্রতিবন্ধী শাশুড়ী ননদসহ আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার (২১ নভেম্বর) দিবাগত রাতে পৌর শহরের রামপাশা রোডের ইরন এন্ড তোরন মঞ্জিলে বসবাসকারী বালু-পাথর ব্যবসায়ী ফরিদ মিয়ার স্ত্রী ও পুত্রবধূর তারই আপন ভাই বোন মিলে প্রতিবন্ধী শাশুড়ী ও ননদের উপর হামলা করেন।

এঘটনায় রবিবার রাতেই ৬ জনের নাম উল্লেখ করে বিশ্বনাথ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের রঘুপুর গ্রামের মৃত মদরিছ আলীর স্ত্রী লায়লুন নাহার (৬৫)।

হামলাকারীরা হলেন, ফরিদ মিয়ার স্ত্রী লিপি বেগম(৩৩) ওসমানীনগর থানার ধুলিয়ারবন গ্রামের সায়েস্তা মিয়ার ছেলে সাহেদ মিয়া ( ৩০) জাহেদ মিয়া(২৫) রায়হান মিয়া (২০) পপি বেগম (২৪) লাকি বেগম (১৯)।

আহতরা হলেন, মৃত মদরিছ আলীর স্ত্রী লায়লুন নাহার (৬৫) লায়লুন নাহারের মেয়ে প্রতিবন্ধী রেসনা বেগম।

আহত অবস্থায় লায়লুন নাহারকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি দীর্ঘদিন ধরে পৌর শহরের বাসায় ছেলে মেয়েদের নিয়ে বসবাস করে আসছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করেন, ফরিদ মিয়ার স্ত্রী ও তারই আপন ভাই বোন মিলে আমার প্রতিবন্ধী মেয়েকে দীর্ঘদিন যাবত মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করে আসছে।

আমি লোক লজ্জায় এবং কোনো উপায় না পাইয়া কষ্ট করে আমার প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়া তাদের নির্যতন সহ্য করিয়া আসিতেছি।

লিপি বেগম আমাকে ও আমার প্রতিবন্ধী মেয়েকে বাসা থেকে বাহির করে দেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন যাবৎ সুযোগ খুজিয়া আসিতেছে।

প্রায় ২০/২২ দিন পূর্বে আমার বড় ছেলে ফরিদ মিয়া তাহার ব্যক্তিগত কাজে ইন্ডিয়ায় চলে যায়। আমার ছেলে ইন্ডিয়ায় চলে যাওয়ার পর থেকে আমার ও আমার প্রতিবন্ধী মেয়ের সাথে শারিরীক ও মানসিক নির্যতন আরো বেশি করতে থাকে।

এবং প্রতিদিন বাসা থেকে বাহির হয়ে চলে যাওয়ার জন্য বলে। বাসা থেকে বাহির না হলে লিপি বেগমের ভাই ও বোন মিলে হঠাৎ করে দেশী অস্র দিয়ে আমি ও আমার প্রতিবন্ধী মেয়ের উপর হামলা চালায়। এতে আমি ও আমার প্রতিবন্ধী মেয়ে আহত হই।

এ ব্যাপারে কথা হলে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) গাজী আতাউর রহমান বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

© All rights reserved